Skip to main content
Masuk Sarker Batista
Founder & CEO of MSB Academy
Asked a question 9 months ago

আমেরিকায় চার পাখার ফ্যান বহুল ব্যবহৃত হলেও, আমাদের দেশে তিন পাখার ফ্যান বেশি ব্যবহৃত হয় কেন?

কোথায় আপনি?

এই MSB Ask কমিউনিটিতে আপনি যেকোনো প্রশ্ন করতে পারবেন, উত্তর দিতে পারবেন এবং নিজের অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে পারবেন। তাই নতুন হলে সাইনআপ করুন, আর আগেই থেকেই অ্যাকাউন্ট থাকলে লগিন করুন।  

এই অভূতপূর্ব প্রশ্নের উত্তরটি আমাকে বলতে দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ। এইবারে আপনার প্রশ্নের উত্তরে আসা যাক। আমেরিকার সমস্ত ঘরেই এয়ারকন্ডিশন থাকে আর আমেরিকার ঘরে পাখা ব্যবহার করা হয় যাতে এয়ারকন্ডিশনের হাওয়া টা সমস্ত ঘরে ছড়িয়ে দেওয়া যায়। কিন্তু ভারতে বা বাংলাদেশে ফ্যান এর মাধ্যমেই আমাদের ঘরের উষ্ণতা নিয়ন্ত্রিত হয়ে থাকে। চার ব্লেড এর ফ্যান এর থেকে তিন ব্লেডের ফ্যান হালকা হওয়ায় তিন ব্লেড এর ফ্যান অতিরিক্ত গতির সাথে ঘুরতে পারে। আর তাছাড়াও আরেকটি কারণ থাকতে পারে বলে আমার অনুমান। ভারতে ঘরে ঘরে এসি সাপ্লাই এর ভোল্টেজ 220 ভোল্ট কিন্তু আমেরিকায় তা 110 ভোল্ট।তাই তাদের পাখা কম জোরে ঘুরিয়ে তাদের বিদ্যুতে যাতে কোনো ঘাটতি না ঘটে সেই দিকটা ও লক্ষ্য করা হয়ে থাকতে পারে।

কারণ এমেরিকা শীত প্রধান দেশ... এমেরিকায় গরম কালে ফ্যান চলে মূলত এসির বাতাসকে ছড়িয়ে দিতে বা শীতকালে রিভার্স সুইচের মাধ্যমে উল্টোদিকেও ফ্যান চলে সেখানে। এতে রুমহিটারের উত্তাপকে উপরে সরিয়ে নিতে সুবিধা হয় । তাই চার বা পাঁচ পাখার ফ্যান সেখানে জনপ্রিয়। আর তিনপাখার ফ্যান গরম প্রধান দেশগুলোতে জনপ্রিয় সজোরে ঘরের বাতাস বের করার জন্য।

Wasimul Haque Anis
নতুন তথ্যর সন্ধানে,

আমার মনে হয় মূল কারণ ভ্যালু ইঞ্জিনীয়ারিং বা সোজা কথায় গরীব দেশে পয়সা বাঁচানো এবং উৎপাদন খরচ বাঁচিয়ে সস্তায় ফ্যান বিক্রী করা। তিন ব্লেডের ফ্যানের হাওয়ার প্রবাহ চার ব্লেডের ফ্যানের হাওয়ার প্রবাহের চেয়ে বেশী অসম। চার ব্লেড থাকলে হাওয়ার প্রবাহটা অনেকটা স্মুথ হয়, কম রিপ্‌ল থাকে। কিন্তু ফ্যান তৈরীর খরচ বেশী পড়ে, ভারতেও চার ব্লেডের ফ্যান পাওয়া যায়, যার দাম একটু বেশী। এখানে দেশ বা সাপ্লাই ভোল্টেজ ফ্যাক্টর নয়, ফ্যাক্টর হলো খরচ। ভারত হলো এমন দেশ যেখানকার ক্রেতারা কম পয়সায় জিনিস কিনতে ভালোবাসে তারজন্য কোয়ালিটি একটু কম্প্রোমাইজ করতে হলে করে নেয়। আমেরিকার মতো ধনী দেশে সেটা উল্টো। তারা দামের চেয়ে গুণগত মানকে বেশী গুরুত্ব দেয়।