Skip to main content
Habibur Rahman Habib
Head of Support Team at MSB Academy
Asked a question 7 months ago

আপনার কি মনে হয় করোনা ভাইরাস বাংলাদেশে মহামারি আকার ধারন করবে?

কোথায় আপনি?

এই MSB Ask কমিউনিটিতে আপনি যেকোনো প্রশ্ন করতে পারবেন, উত্তর দিতে পারবেন এবং নিজের অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে পারবেন। তাই নতুন হলে সাইনআপ করুন, আর আগেই থেকেই অ্যাকাউন্ট থাকলে লগিন করুন।  

ইনশাল্লাহ করবে না।

Md. Asadullah
Freelancer and Tech Blogger

সমুহ সম্ভাবনা আছে, কারন আমাদের সিস্টেম টা এমন। কোন বিপদ আসার আগে আমরা সেটা নিয়ে কাজ করি না। এমন কি বিপদ আসার পরও আমরা সেটা সমাধান করতে ব্য়র্থ হই। তাই, সকলের উচিৎ সাবধান থাকা। 

বাংলাদেশ কাউকে করোনা ভাইরাস আক্রমণ করেনি । যাদের করেছে তারা বিদেশ ফেরত বাংলাদেশি। সুতরাং বেশি চিন্তার কোন কারণ নেই।  

ইতিমধ্যে বাংলাদেশে ৫০ এর অধিক মৃত্যু বরণ কড়েছে। তাই বলা যায় উচ্চ মহামারি না হলেও মধ্য মহামারি হতে পারে। কারণ বাংলাদেন অতি ঘন বসতি সম্পন্ন দেশ। যখন ভাইরাস আছসে তখিন ছড়াইতে সময় নেবে না। এছাড়া বাংলাদেশের নিম্ন শ্রেনির মানুষ অজ্ঞ।                                                                                                                                                                                                                              তাছাড়া অনেক বিশেষজ্ঞ, প্রতিবেশী দেশগুলোর তুলনায় কম পরীক্ষা করাকেই, দেশে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা কম পাওয়ার কারণ হিসেবে বিবেচনা করছেন (২৯ মার্চ পর্যন্ত বাংলাদেশে সর্বোমোট পরীক্ষা করা হয়েছে ১০৮৫ টি যা ভারতে ২৭,৬৮৮ টি এবং পাকিস্তানে ১৪,৩৩৬ টি)।                                                                                                                                                                                                                            বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ১৬ কোটি জনসংখ্যার দেশ হিসেবে যথেষ্ট পরিমান পরীক্ষা বাংলাদেশে করা হয়নি।সংবাদপত্র ও সামাজিক মাধ্যমে কোভিড-১৯ এর লক্ষণসহ অনেকসংখ্যক রোগীর মৃত্যুসংবাদ এসেছে যার মধ্যে কিছুসংখ্যক ভূয়া এবং ষড়যন্ত্রতত্ব বলে প্রামানিত হয়েছে। মৃতদের মধ্যে বেশ কয়েকজনকে স্থানীয় জেলা হাসপাতালে আইসোলেশনে রেখে কোভিড-১৯ এর চিকিৎসা দেয়া হয়েছিল তবে কয়েকজনকে চিকিৎসা দিতেও অস্বীকৃতি জানানো হয় যদিও যাচাই নিশ্চিত করতে কোনই পরীক্ষা করা হয়নি। দীর্ঘ সময় যাবত পরীক্ষা প্রক্রিয়াকে শুধুমাত্র রাজধানীর 'আইইডিসিআর' এ বিকেন্দ্রীকরণ করা হয়েছিল যদিও কোভিড-১৯ এর লক্ষনসহ রোগীর খোঁজ সারাদেশেই পাওয়া গিয়েছিল।                                                                                                                                                                                                      'আইইডিসিআর' কতৃক একগুচ্ছ হটলাইন নাম্বার, ই মেইল অ্যাড্রেস এবং তাদের ফেসবুক পাতা জনগনের জন্য সরবরাহ ও নিশ্চিত করা হয়েছিল যাতে তারা দরকারী তথ্য বা কোভিড-১৯ সন্দেহে যোগাযোগ করতে পারেন।                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                

২২ মার্চ, বাংলাদেশ সরকার ১০ দিন অবরুদ্ধকরণ চালু করেছিলো যা ২৬ মার্চ - ৪ এপ্রিল পর্যন্ত কার্যকর করা হয়েছিল। পরবর্তীতে তা ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত বর্ধীত করা হয়। অতঃপর পুনরায় তা ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত বর্ধীত করা হয়। ৩১ মার্চ স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন যে আরো ৩০০ 'ভেন্টিলেটর মেশিন' আমদানী করা হচ্ছে।                                                                                                                                                                                                                                                                            

 এই ব্যাধিটির সাধারণ উপসর্গ হিসেবে জ্বর , সর্দি এবং শ্বাসকষ্ট দেখা যায়। কিছু ক্ষেত্রে মাংসপেশীর ব্যথা, বারবার থুতু সৃষ্টি এবং গলায় ব্যথা দেখা যেতে পারে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই উপসর্গগুলো নমনীয় আকারে দেখা যায়, কিন্তু কিছু গুরুতর ক্ষেত্রে ফুস্ফুস প্রদাহ (নিউমোনিয়া) এবং বিভিন্ন অঙ্গের বিকলতাও দেখা যায়। সংক্রমিত হবার পরে এই ব্যাধিতে মৃত্যুর হার গড়ে ৩.৪%, যেখানে ২০ বছরের নিচের রোগীদের মৃত্যুর হার ০.২% এবং ৮০ বছরের উর্ধ্বে রোগীদের প্রায় ১৫%।                                                                                                                                                                                                    

 আরো জানতে- https://bn.wikipedia.org/wiki/%E0%A7%A8%E0%A7%A6%E0%A7%A8%E0%A7%A6_%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%82%E0%A6%B2%E0%A6%BE%E0%A6%A6%E0%A7%87%E0%A6%B6%E0%A7%87_%E0%A6%95%E0%A6%B0%E0%A7%8B%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A6%AD%E0%A6%BE%E0%A6%87%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%B8%E0%A7%87%E0%A6%B0_%E0%A6%AC%E0%A7%88%E0%A6%B6%E0%A7%8D%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%95_%E0%A6%AE%E0%A6%B9%E0%A6%BE%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%804

আসলে নিশ্চিত ভাবে বলা সম্ভব না। কেনো না এটি জনগন এর উপর নির্ভরশীল।যদি মানুষ সচেতন না থাকে তাহলে এটা অনেক ভয়াভয়ো আকার ধারন করবে কারনে এটা ছোয়াছে ভাইরাস।সেক্ষেত্রে এই ভাইরাস মহামারি আকার ধারন করার আগে থেকে যদি মানুষ সচেতন থাকে তাহলে ইনশাআল্লাহ। ভাইরাস নিয়ন্ত্রনে আসবে।