Skip to main content
Question
Wasimul Haque Anis
নতুন তথ্যর সন্ধানে,
Asked a question 4 months ago

‘দারিদ্র্যের দুষ্টচক্র’ বলতে আসলে কী বোঝায়? সহজ ভাষায় বোঝাতে পারেন কি?

কোথায় আপনি?

এই MSB Ask কমিউনিটিতে আপনি যেকোনো প্রশ্ন করতে পারবেন, উত্তর দিতে পারবেন এবং নিজের অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে পারবেন। তাই নতুন হলে সাইনআপ করুন, আর আগেই থেকেই অ্যাকাউন্ট থাকলে লগিন করুন।  

একদম সহজ ভাষায় বলতে গেলে গরিব মানুষ বড়লোক না হওয়ার পিছনে যে কারণটি দায়ী তাই দারিদ্রের দুষ্ট চক্র।

দেশে যত নিম্ন বিত্ত মানুষ আছে তারা যদি কোনো ব্যবসা করতে চায়(টাকা কামানোর কথা মনে করতে পারেন) তাহলে সে ইনভেস্ট করার জন্য কনো টাকা পাবে না অথবা কম টাকা করতে পারবে, ফলে তার আয়ও কম হবে।

আবার এসব দরিদ্র মানুষের খাওয়া দাওয়া ঠিক থাকে না। ফলে তারা কম বয়সে অসুস্থ হয়ে পড়েন এবং জমানো সকল টাকা শেষ হয়ে যায়।

এজন্য গরীব মানুষ সারা জীবন গরিবই থাকে, এটাই আপনার প্রশ্নের উত্তর।

 

আমি একদম নিজের ভাষায় সহজ করে লেখার চেষ্টা করেছি।

দারিদ্র্যের দুষ্টচক্র’ বলতে আসলে যা বোঝায় তা হলো,

আমরা জানি, পৃথিবীর অনুন্নত ও অনেক উন্নয়নশীল দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের প্রধান অন্তরায় হলো দারিদ্র্য।

এসব দেশে উন্নয়নের প্রচেষ্টা চালানো হলেও 'দারিদ্র্যের দুষ্টচক্র' নামে একটি বিশেষ অর্থনৈতিক অবস্থা বিরাজ করে, যা দেশের উন্নয়নের পথে বাধা সৃষ্টি করে।

অধ্যাপক র‌্যাগনার নার্কস বলেন, 'দারিদ্র্যের দুষ্টচক্র হলো এমন কিছু শক্তির একত্রীকরণ যেগুলো পরস্পরের সঙ্গে ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়ার মাধ্যমে একটি দেশকে দরিদ্র করে রাখে।'

নার্কসের মতে, 'একটি দেশ দরিদ্র, কারণ সে দরিদ্র।' অর্থাৎ A country is poor because it is poor.

দারিদ্র্যের দুষ্টচক্রের ধারণাকে মূলধনের চাহিদা ও মূলধনের জোগান উভয় দিক থেকে ব্যাখ্যা করা যায়। মূলধনের চাহিদা : দেশে উৎপাদন কম হলে জনগণের আয় কম হয়। আয় কম বলেই লোকের ক্রয়ক্ষমতা কম এবং সে জন্য বাজারে দ্রব্যের চাহিদা কম। দ্রব্যের স্বল্প চাহিদার জন্য বিনিয়োগের পরিমাণ কম। বিনিয়োগ অল্প বলে মূলধনের চাহিদা ও তার ব্যবহার কম। এ কারণে আবার উৎপাদন কম। নিচের রেখাচিত্রে এই চক্রটি দেখানো হলো :

‘দারিদ্র্যের দুষ্টচক্র’ বলতে আসলে কী বোঝায়? সহজ ভাষায় বোঝাতে পারেন কি?

মূলধনের জোগান : স্বল্প উৎপাদনের কারণে স্বল্প আয়। আয় কম বলে জনগণের সঞ্চয় কম। কম সঞ্চয়ের জন্য কম বিনিয়োগ, কম বিনিয়োগের জন্য মূলধনের জোগান কম হয়। মূলধনের অভাবে আবার উৎপাদন ও আয় কম। রেখাচিত্রে এটি দেখানো হলো : স্বল্প উৎপাদন স্বল্প আয় স্বল্প সঞ্চয় স্বল্প বিনিয়োগ স্বল্প মূলধন চিত্রে দেখা যায়, দারিদ্র্যের চক্রটি আপন বৃত্তে আবর্তিত হয়ে দরিদ্র দেশ দরিদ্র করে রাখে।

দারিদ্র্যে হয়ে জন্ম নাওয়া ও দারিদ্র্যে থেকে যাওয়া কেই দারিদ্র্যের দুষ্টচক্র বলা যাই। যেমন একটি বাংলাদেশের বাস্তবটা বলি। 

এক পরিবারের তাদের বাচ্চাদের নিয়ে খুবই দরিদ্র পরিবারে খেতে খুব কম এবং স্বাস্থ্য সেবার জন্য টাকা নেই। যার ফলে শিশুরা অপুষ্ট এবং অস্বাস্থ্যকর এবং অনেক গুলি রোগ আছে । তারা তাই স্কুলে যেতে পারে না কারণ তাদের সেই ক্ষমতা বাঁ শক্তি নেই। বাড়ির পাশে স্কুল যদিও। তারা কোনও  শিক্ষা বা দক্ষতা নিয়ে বড় হয় না এবং কোনও অর্থনৈতিক কার্যকলাপ করতে পারে না।

আর  তাদের পিতামাতারা স্বাস্থ্যসেবার অভাবের ফলে প্রতিরোধযোগ্য রোগ থেকে মারা যায় এবং তাদের ভাগ্য তাদের হাতে। শিশুরা প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার সাথে সাথে তারা এমন স্ত্রীদের সন্ধান করে যা তাদের মতো দারিদ্র্যের মাত্রায় রয়েছে এবং তাদের নিজস্ব সন্তান হয়। তাদের বচ্চেও একই পরিস্থিতিতে বড় হবে এবং এমনই হবে। যদি এই দারিদ্র্যের দুষ্টচক্র মধ্যে থাকে। 

‘দারিদ্র্যের দুষ্টচক্র’ বলতে আসলে কী বোঝায়? সহজ ভাষায় বোঝাতে পারেন কি?

তাই এই জন্যই সবাই ১৬ টাকা থেকে আর আকিজ এর মত গ্রুপ খুলতে পারে না। :( 

দারিদ্র্যের দুষ্টচক্র বলতে সাধারণত দারিদ্র্য কি ভাবে দারিদ্র্যের জন্ম দেয় তা বুঝায় । মনে করুন স্বল্প পুজি বিনিয়োগ ব্যবসা শুরু করলেন। এই সবপ্ল পুজির জন্য কম উৎপাদন হবে,, এই কম উৎপাদনশীলতা যা আবার কম আয়ের দিকে আপনাকে পরিচালিত করে। কি বুঝতে পারেন নি তো,, তাহলে আরো সহজ করে বুঝাচ্ছি,, ধরুন আপনার গ্রামে দরিদ্র কৃষক আছেন। ঔই দরিদ্র কৃষকটি পর্যাপ্ত খাবার পান না যা তাকে দুর্বল করে তোলে। দুর্বলতার ফলে তার কাজের দক্ষতা হ্রাস পায় ফলস্বরূপ তিনি কম আয় করেন এবং তার এই কম আয় আবার তাকে দারিদ্রতার দিকে ধাবিত করেন।