Skip to main content
Question
Asked a question 5 months ago

গরম পানি পান করলে কি কি উপকার হয়?

কোথায় আপনি?

এই MSB Ask কমিউনিটিতে আপনি যেকোনো প্রশ্ন করতে পারবেন, উত্তর দিতে পারবেন এবং নিজের অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে পারবেন। তাই নতুন হলে সাইনআপ করুন, আর আগেই থেকেই অ্যাকাউন্ট থাকলে লগিন করুন।  

পুষ্টিবিদদের মতে, গরম পানি খেলে পেট পরিষ্কার থাকে। পেট পরিষ্কার থাকলে শরীরে কোনো রোগ সহজে বাসা বাঁধতে পারে না।

গরম পানি পান করলে কি কি উপকার হয়?

আর পেট পরিষ্কার থাকলে ত্বকও থাকে ঝকঝকে, উজ্জ্বল থাকে। প্রতিদিন সকালে, খাবার খাওয়ার ৩০ মিনিট আগে বা পরে যদি এক গ্লাস কুসুম গরম পানি খান তবে বদহজম, অম্বলের মতো একাধিক সমস্যা থেকে সহজেই মুক্তি পাওয়া সম্ভব।

এছাড়া শরীর দ্রুত ডিটক্স হয়ে যায়। ত্বকে জমাট বাধা তেল, ধুলোবালি থেকে সহজেই মুক্তি পাওয়া যায়। পেট পরিষ্কার থাকলে ব্রণ-ফুসকুড়ির সমস্যা থেকেও সহজেই দূরে থাকা যায়। ১. খাবার খাওয়ার ৩০ মিনিট আগে যদি এক গ্লাস কুসুম গরম পানি খাওয়া যায় তবে অ্যাসিডিটি, বদহজম, অম্বলের মতো একাধিক সমস্যা থেকে সহজেই মুক্তি মিলবে।

গরম পানি পান করলে কি কি উপকার হয়?

আপনার যদি দীর্ঘদিন ধরে কোষ্ঠকাঠিন্যে থাকে তাহলে সকালে ঘুম থেকে উঠে খালি পেটে এক গ্লাস কুসুম গরম পানি খেলে পেট সহজেই পরিষ্কার হয়ে যাবে। এছাড়া কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা থেকে মুক্তি মিলবে।

কুসুম গরম পানি খেলে শরীরের ভেতরের তাপমাত্রাটা সামান্য হলেও বৃদ্ধি পায় এবং ঘাম হয় বেশি। ঘামের সঙ্গে শরীরে জমে থাকা অপ্রয়োজনীয় উপাদান ঘামের সঙ্গে বের হয়ে যায়।

হালকা গরম পানি দেহের জন্য আশ্চর্যজনকভাবে অনেক কিছু উপকারে আসে। নিচে উল্লেখ করলাম। 

  • কোষ্ঠকাঠিন্য বা শরীর কড়া থেকে রক্ষা করে। শরীরের পানির ঘাটতি পূরণ হলে কোষ্ঠকাঠিন্যও থাকবে না।
  • ওজন কমাতে সাহায্য করে শুধু গরম পানি পান ওজন কমায় না, কিন্তু ওজন কমানোর প্রক্রিয়াকে সাহায্য করবে। পুষ্টিবিজ্ঞানী ও রেজিস্টার্ড ডায়েটিশিয়ান কারা ওয়ালশ বলেন, বিপাক প্রক্রিয়াকে অধিকতর কার্যকরী করতে গরম পানি ও লেবু দিয়ে সকাল এ শুরু করতে পারেন। 
  • নার্ভাস সিস্টেম আরও কর্মক্ষম হয়ে ওঠে। গরম পানি পান করা মাত্র সারা শরীরে এমনকি মস্তিষ্কেও রক্তচলাচল বেড়ে যায়। 
  • হজম ক্ষমতার উন্নতি ঘটে খাবার খাওয়ার পর ঠাণ্ডা পানি পান করলে পাকস্থলীর ভিতরের দেওয়ালে ফ্যাটের পরিমাণ বাড়তে শুরু করে। যার ফলে ধীরে ধীরে পাকস্থলীর কর্মক্ষমতা কমে যায়। সেই সঙ্গে ইন্টেস্টিনাল ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও বৃদ্ধি পায়। তাই তো খাবার পর পর ঠাণ্ডা পানির পরিবর্তে হালকা গরম পানি পান করার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা। 
  • শরীর ও মাথার স্ট্রেস কমিয়ে দেয়। সারাদিন কাজ করে আমাদের যে ক্লান্তিবোধ আসে, তা দূর করে। 
  • সহজাত ব্যথা দূর করে ঠান্ডা পানি পানে পেশি সংকুচিত হয়, কিন্তু গরম পানি পানে টিস্যুতে রক্তপ্রবাহ বৃদ্ধি পায় এবং পেশি শিথিল হয়। 

এছাড়াও বলতে গেলে অনেক কিছু বলা শুধু বলা যাই যে ঠাণ্ডা পানি এর চেয়ে গরম পানি ভালও। যেমন

  • ওজন নিয়ন্ত্রণে কাজে আসে
  • দাঁতের উপকার করে
  • রক্ত চলাচল, ব্যথা , ব্ররন নিয়ন্ত্রণে কাজে আসে। 

গরম পানি খেলে যেসব উপকার পাওয়া যাবে:

১) ওজন নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে

অন্য কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে শুধু গরম পানি পান করলে আপনার ওজন কমবে না। তবে ডায়েট ও ব্যায়ামের পাশাপাশি নিয়মিত গরম পানি পান করলে ওজন কমে। সকালে ঘুম থেকে উঠে কুসুম গরম পানি এবং পাকা লেবুর রস মিশিয়ে পান করলে শরীর সারাদিন ক্যালোরি পোড়ায়। এছাড়া এতে পেট ফাঁপা রোধ হয়।

২) সাইনাস পরিষ্কার হয়

সর্দি লেগে গেলে গরম পানি পান করাটা খুবই কাজে আসে। ইনফেকশন সারাতেও তা কাজ করে। গরম পানির কারণে সর্দি পাতলা হয়ে আসে এবং শরীর থেকে দ্রুত বের হয়ে যায়।

৩) দাঁতের উপকারে আসে

আসল ও নকল- দুই ধরণের দাঁতের জন্যই গরম পানি উপকারী। ঠাণ্ডা পানি পান করলে অনেক সময় দাঁতের ফিলিং দ্রুত নষ্ট হয়ে যায়। অবশ্য খুব বেশি গরম পানিও ক্ষতি করে।  দাঁত ভালো রাখতে কুসুম গরম পানি পান করুন।

৪) হজমে সহায়ক

গরম পানির আছে ভ্যাসো ডায়ালেটর বৈশিষ্ট্য। অর্থাৎ তা রক্তনালিকাগুলোকে প্রসারিত করে এবং হজমে সহায়তা করে। সকালে খালি পেটে গরম পানি পান করলে তা পরিপাকতন্ত্রকে উত্তপ্ত করে এবং এর আশেপাশের রক্তনালিকাগুলোকে সচল করে। এরপর খাবার খাওয়া হলে তা সহজে হজম হয়।

৫) শরীর থেকে টক্সিন দূর করে

শরীরের অভ্যন্তরীণ তাপমাত্রা বাড়ায় গরম পানি। এতে শরীর ঘামে, ফলে শরীর থেকে বিষাক্ত ও বর্জ্য পদার্থের নির্গমন ত্বরান্বিত হয়।  গরম পানির সাথে লেবুর রস মিশিয়ে নিতে পারেন। এছাড়া গ্রিন টি ও পান করতে পারেন।

৬) ব্যথা কমায়

ঠাণ্ডা পানি পান করলে পেশী টানটান হয়ে আসে, অন্যদিকে গরম পানি পান করলে পেশীতে রক্ত চলাচল বাড়ে এবং পেশী শিথিল হয়।  জয়েন্টের ব্যথা থেকে শুরু করে পিরিয়ডের ক্র্যাম্প, সব ধরণের ব্যথা কমাতে কাজে আসে গরম পানি। এছাড়া ঘুমাতে যাবার আগে পানি পান করাটাও শরীর ঝরঝরে এবং ব্যথামুক্ত রাখে।

৭) রক্ত চলাচল ভালো করে

গরম পানিতে গোসল করাটা যেমন রক্ত চলাচলের জন্য উপকারী, তেমনি গরম পানি পান করাটাও উপকারী। এতে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে এবং হৃদযন্ত্র থাকে সুস্থ।

৮) কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে

প্রতিদিন সকালে গরম পানি পান করে দিন শুরু করলে পরিপাকতন্ত্র সুস্থ থাকে এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের ঝুঁকি কমায়। পানির উত্তাপ অন্ত্রকে সচল রাখে এবং মলত্যাগ সহজ করে। সম্ভব হলে সারাদিন ধরেই হালকা গরম পানি পান করুন।

৯) আপনাকে অমায়িক করে

ঠাণ্ডা পানীয় পান করার পরিবর্তে আপনি যদি গরম পানি পান করেন, তাহলে অন্যরা আপনাকে ভালো চোখে দেখবে। এছাড়া আপনার হাতে গরম পানির মগ বা কাপ থাকলে আপনার আচরণটাও বেশি বন্ধুত্বপূর্ণ হয়, দেখা গিয়েছে এক গবেষণায়।