Skip to main content
Mahmudul Hasan Ashik
Student | Blogger | Tech Lover
Asked a question 8 months ago

মোবাইল রুট করলে কী হয়? এর সুবিধা কী?

কোথায় আপনি?

এই MSB Ask কমিউনিটিতে আপনি যেকোনো প্রশ্ন করতে পারবেন, উত্তর দিতে পারবেন এবং নিজের অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে পারবেন। তাই নতুন হলে সাইনআপ করুন, আর আগেই থেকেই অ্যাকাউন্ট থাকলে লগিন করুন।  

পারফরমেন্স বাড়ানোঃ বিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করে ডিভাইসের অব্যবহৃত ফাইল, টেমপোরারি ফাইল ইত্যাদি নিয়মিত মুছে ফোনের গতি ঠিক রাখা।

ওভারক্লকিং করাঃ সিপিইউ স্পিড স্বাভাবিক অবস্থায় যতটা থাকে তারচেয়ে বেশি দ্রুত কাজ করানো। এর মাধ্যমে কোনো বিশেষ কাজে প্রসেসরের গতি বাড়ানোর প্রয়োজন পড়লে তা করা যায়।

আন্ডারক্লকিং করাঃ যখন ডিভাইস এমনিতেই পড়ে থাকে, তখন সিপিইউ যেন অযথা কাজ না করে যে জন্য এর কাজের ক্ষমতা কমিয়ে আনা। এতে করে ব্যাটারি ব্যাকআপ বাড়ানো সম্ভব।

কাস্টম ইউআই: আপনার ডিভাইসের হোমস্ক্রিন, লক স্ক্রিন, মেনু ইত্যাদি বিভিন্ন ইউজার ইন্টারফেসের ডিজাইন একটা সময় পর আর ভালো নাও লাগতে পারে। তখন আপনি ডিভাইসে নতুনত্ব আনতে পারবেন নতুন সব কাস্টম ইউজার ইন্টারফেসের মাধ্যমে। এগুলোকে অন্যভাবে রমও বলা হয়।

কাস্টম রম: ইন্সটল করার সুবিধা। অনেক ডেভেলপার বিভিন্ন জনপ্রিয় ডিভাইসের জন্য কাস্টম রম তৈরি করে থাকেন। এসব রম ইন্সটল করে আপনি আপনার সেটকে সম্পূর্ণ নতুন একটি সেটের রূপ দিতে পারবেন। বাইরে থেকে অবশ্যই এর ডানা-পাখনা গজাবে না বা ক্যামেরা ৫ মেগাপিক্সেল থেকে ৮ মেগাপিক্সেল হবে না, কিন্তু ভেতরের ডিজাইন ও ক্ষেত্রবিশেষে পারফরম্যান্সেও আসবে আমূল পরিবর্তন।

Wasimul Haque Anis
নতুন তথ্যর সন্ধানে,

রুট হচ্ছে অ্যাডমিনিস্ট্রেটর বা প্রশাসক। যদিও এর বাংলা অর্থ গাছের শিকড়, লিনাক্সের জগতে রুট বলতে সেই পারমিশন বা অনুমতিকে বোঝায় যা ব্যবহারকারীকে সর্বময় ক্ষমতার অধিকারী করে তোলে (অবশ্যই কেবল সেই কম্পিউটার, ডিভাইস বা সার্ভারে!)। রুট হচ্ছে একটি পারমিশন বা অনুমতি। এই অনুমতি থাকলে ব্যবহারকারী সেই ডিভাইসে যা ইচ্ছে তাই করতে পারেন।

Mohammad Alif
Digital Marketer | Philosophy Enthusiast

মূলত আইফোনের জেইলব্রেক আর এন্ড্রয়েডের রুট একি জিনিস।  Custom Rom Installation আমার মতে রুট এর সবচেয়ে বড় সুবিধা 

রুট করার সুবিধা

  • পারফরমেন্স বাড়ানোঃবিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করে ডিভাইসের অব্যবহৃত ফাইল, টেমপোরারি ফাইল ইত্যাদি নিয়মিত মুছে ফোনের গতি ঠিক রাখা।
  • ওভারক্লকিং7 করাঃ সিপিইউ স্পিড স্বাভাবিক অবস্থায় যতটা থাকে তারচেয়ে বেশি দ্রুত কাজ করানো। এর মাধ্যমে কোনো বিশেষ কাজে প্রসেসরের গতি বাড়ানোর প্রয়োজন পড়লে তা করা যায়।
  • আন্ডারক্লকিং9 করাঃ যখন ডিভাইস এমনিতেই পড়ে থাকে, তখন সিপিইউ যেন অযথা কাজ না করে যে জন্য এর কাজের ক্ষমতা কমিয়ে আনা। এতে করে ব্যাটারি ব্যাকআপ বাড়ানো13 সম্ভব।
  • কাস্টম ইউআই12: আপনার ডিভাইসের হোমস্ক্রিন, লক স্ক্রিন, মেনু ইত্যাদি বিভিন্ন ইউজার ইন্টারফেসের ডিজাইন একটা সময় পর আর ভালো নাও লাগতে পারে। তখন আপনি ডিভাইসে নতুনত্ব আনতে পারবেন নতুন সব কাস্টম ইউজার ইন্টারফেসের মাধ্যমে। এগুলোকে অন্যভাবে রমও বলা হয়।
  • কাস্টম রম9: ইন্সটল করার সুবিধা। অনেক ডেভেলপার বিভিন্ন জনপ্রিয় ডিভাইসের জন্য কাস্টম রম তৈরি করে থাকেন। এসব রম ইন্সটল করে আপনি আপনার সেটকে সম্পূর্ণ নতুন একটি সেটের রূপ দিতে পারবেন। বাইরে থেকে অবশ্যই এর ডানা-পাখনা গজাবে না বা ক্যামেরা ৫ মেগাপিক্সেল থেকে ৮ মেগাপিক্সেল হবে না, কিন্তু ভেতরের ডিজাইন ও ক্ষেত্রবিশেষে পারফরম্যান্সেও আসবে আমূল পরিবর্তন।

রুট করার প্রথম সুবিধাটি হলো একবার আপনি আপনার ফোনকে রুট করে নিলেন তারপর আপনি আপনার ফোনটির সাথে যা ইচ্ছা তাই করতে পারবেন। যা ইচ্ছা তাই বলতে একদম যা যা আপনার ইচ্ছা। প্লে স্টোরে এমন অনেক অ্যাপ আছে যারা শুধু রুটেড ফোনকে সমর্থন করে থাকে। এবং সেই অ্যাপ গুলো ডাউনলোড করার পরে অ্যাপ গুলোকে সুপার ইউজার অনুমতি দেওয়ার মাধ্যমে তাদেরকেও আপনি ফোনটির মূল পর্যন্ত প্রবেশের অনুমতি দিতে পারেন। এবং সেই অ্যাপ গুলো সফটওয়্যারের মূলে প্রবেশ করে আপনাকে অসাধারন সব কার্যক্ষমতা দেখাতে সক্ষম হবে। রুট করার পরে এমন হাজারো অ্যাপ আছে যার দ্বারা আপনি হাজারো ফিচার উন্মুক্ত করতে পারবেন। যেমন ফোনের ব্যাটারি লাইফ বাড়াতে পারবেন, ওভার ক্লকিং করাতে পারবেন, প্রসেসর আন্ডার ক্লকিং করাতে পারবেন, ফোনের রম পরিবর্তন করতে পারবেন ইত্যাদি। অর্থাৎ রুট করার পরে আপনার ফোনকে একদম হাই-এন্ড ফোন বানাতে পারেন আবার ফোনের কার্যক্ষমতা কমিয়ে প্রচুর ব্যাটারি সেভ করাতে পারেন, তো সবকিছুই মোটামুটি আপনার হাতে।

দ্বিতীয়ত আপনার ফোনকে রুট করার পরে আপনি চাইলে আপনার ফোনে থাকা অপ্রয়োজনীয় সিস্টেম অ্যাপ গুলো রিমুভ করতে পারবেন। মনে করুন আপনি একটি স্যামসাং এর ফোন কিনলেন, এখন এর ভেতর স্যামসাং অনেক অ্যাপ ঢুকিয়ে রাখে যেগুলো আপনার কোন কাজের না। সাধারন ভাবে সে অ্যাপ গুলো রিমুভ করাও সম্ভব নয়। তাই রুট করার মাধ্যমে এসকল অপ্রয়োজনীয় অ্যাপ গুলো রিমুভ করে আপনি অনেক স্টোরেজ বাঁচাতে পারেন। যে জিনিস আপনার কাজেরই না, তা রেখে আপনি কি করবেন?

তৃতীয়ত অনেক এমন ফোন আছে যেগুলোর ইন্টারনাল স্পেস অনেক কম হয়। মনে করুন ৮ জিবি বা ১৬ জিবি। তো এই ফোন গুলোতে যখন সফটওয়্যার ইন্সটল করা হয় তখন অনেক তাড়াতাড়ি ইন্টারনাল স্পেস শেষ হয়ে যায়। যদিও মেমোরি কার্ডে অ্যাপ গুলো মুভ করার অপশন থাকে। কিন্তু মেমোরি কার্ডে অ্যাপ মুভ করার পরেও কিছু ডাটা ইন্টারনাল স্টোরেজে থেকে যায়। ফলে ইন্টারনাল স্টোরেজে জায়গা খেয়ে থাকে। আপনি যদি ফোনটিকে রুট করে নেন, তবে কিছু বিশেষ অ্যাপস আছে তার সাহায্যে আপনার মেমোরি কার্ডকেই ফোনের ইন্টারনাল স্টোরেজ হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন। অ্যাপটি আপনার ফোনে এমন এক বিশেষ সিস্টেম ওপেন করে দেবে যার জন্য আপনার ফোন আপনার মেমোরি কার্ডকেই ইন্টারনাল স্টোরেজ হসেবে মনে করবে, এবং সেখানে সকল অ্যাপ ইন্সটল করবে।

রুটিং করার সবচেয়ে বড় সুবিধাটি হলো, আপনি ফোনে কাস্টম রম ব্যবহার করতে পারবেন। কাস্টম রম কি, দেখুন মোবাইল নির্মাতা কোম্পানিরা বেশির ভাগ সময়ই স্টক অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহার করে না। স্টক অ্যান্ড্রয়েড হলো, যেটা গুগল সরাসরি প্রদান করে থাকে। এই মোবাইল কোম্পানিরা কি করে, দেখুন তারা স্টক আন্ড্রোয়েডের উপর তাদের কাস্টম স্কিন লাগিয়ে দেয়। অনেকটা থিমের মতো। অর্থাৎ আপনি পিওর অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহার করতে পারেন না। শুধু মাত্র নেক্সাস ফোন ব্যবহারকারীগন পিওর অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহার করতে পারেন। যাই হোক, আপনার ফোনকে রুট করার মাধ্যমে আপনি বিভিন্ন কাস্টম রম ব্যবহার করতে পারবেন, অথবা আপনার ফোনের মডেলের জন্য যদি স্টক রম থাকে তবে তা দিয়েও আপনি ফোনকে ফ্ল্যাশ করতে পারবেন।

মোবাইলে রুট করলে যেসব সুবিধা পাবেন

১। এন্ড্রয়েডে অনেক প্রিমিয়াম এপস/গেমস আছে যেগুলো ফ্রি ব্যবহার করা যায় না, পয়সা দিয়ে কিনতে হয়। কিন্তু আপনি যদি রুট ইউজার হন তাহলে আপনার জন্য প্রায় সবই ফ্রি হয়ে যাবে!

২। ধরুন, আপনি আপনার কয়েক বছরের পুরাতন এন্ডয়েড ফোনটা চেঞ্জ করে নতুন একটা স্মার্টফোন কিনবেন। কিন্তু সমস্যা হল নতুন ফোন কিনলে সবকিছু আবার প্রথম থেকে শুরু করতে হবে। পুরাতন স্মার্টফোনে আপনার যত এপ্লিকেশন, গেমস ইত্যাদি ছিল তা আবার নতুন করে শুরু করতে হবে। কিন্তু আপনি যদি রুট ইউজার হন তাহলে আপনার ঝামেলা ৯৯% কমে যাবে! আপনার পুরাতন ফোনটাতে যা যা ছিল- যে অবস্থায় ছিল সবকিছু নতুন ফোনে কপি করে নিতে পারবেন- একদম হুবহু। এমনকি ফোনবুক এবং এসএমএস পর্যন্ত হুবহু কপি হয়ে যাবে।

৩। সবচেয়ে বড় সুবিধা হল- বিশেষ উপায়ে আপনি আপনার ফোনের র‍্যাম এবং রম দুটোই বৃদ্ধি করতে পারবেন। তাছাড়া র‍্যাম এবং রমের ব্যবহার কন্ট্রোল করে ফোনের স্পিড অনেকটাই বাড়িয়ে নিতে পারবেন।

৪। ফোনের সাথে অনেক অপ্রয়োজনীয় এপস দেয়া থাকে- যেগুলা ব্যাকগ্রাউন্ডে সবসময় একটিভ থাকে। ফলে ব্যাটারীর উপর সবসময় একটা চাপ থাকে এবং ব্যাটারী দ্রুত ডিসচার্য হয়ে যায়। তাছাড়া এসব এপস ফোনের মূল্যবান স্টোরেজ স্পেস এবং র‍্যাম দখল করে রাখে। রুট করলে এই সমস্যা সমাধান হয়ে যায়।

৫। ফোনের ডিফল্ট বুট লোগো, বুট এনিমেশন, ওয়ালপেপার, রিংটোন, বাংলা এবং ইংরেজী ফন্ট ইত্যাদি পরিবর্তন করা যায়। ধরুন, আপনি ওয়ালটন কোম্পানীর একটা স্মার্টফোন ব্যবহার করেন। ফোনটি চালু করার সময় যে বুট এনিমেশন দেখা যায় এবং লগ ইন সাউন্ড শুনা যায় তা আপনার পছন্দ না। আপনি রুট ইউজার হলে ওয়ালটনের এনিমেশন/সাউন্ড পরিবর্তন করে অন্য যে কোন ব্র্যান্ড এর এনিমেশন/সাউন্ড ব্যবহার করতে পারবেন।

৬। কিছু ব্যাকগ্রাউন্ড এপস আছে যেগুলো আপনার অজান্তেই আপনার মূল্যবান ইন্টারনেট ডাটা ব্যবহার করে আপনাকে ফতুর করে দেয়!! এই সমস্যার শ্রেষ্ঠ সমাধান রুট। রুট করলে কোন এপস ইন্টারনেট এক্সেস পাবে আর কোনটা পাবে না তা আপনি নিজেই ঠিক করে দেবেন।

৭। অনেক এপস আছে যেগুলো ব্যবহার করলে কিছুক্ষণ পরপর বিজ্ঞাপন দেখায়। এটি খুবই বিরক্তিকর লাগে। ফোন রুট করলে বিজ্ঞাপনের এই যন্ত্রণা থেকে চিরতরে মুক্তি পাওয়া যায়।

৮। রুট করার পর নিজের বিভিন্ন কাষ্টম রম ব্যবহারের সুবিধা পাওয়া যায়। এন্ড্রয়েডের লেটেস্ট ভার্শন আপডেট দেয়া যায়।