Skip to main content
Roton Kumar Roy
Asked a question 5 months ago

পৃথিবীর সবচেয়ে শান্তির দেশ কোনটি এবং কেন?

কোথায় আপনি?

এই MSB Ask কমিউনিটিতে আপনি যেকোনো প্রশ্ন করতে পারবেন, উত্তর দিতে পারবেন এবং নিজের অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে পারবেন। তাই নতুন হলে সাইনআপ করুন, আর আগেই থেকেই অ্যাকাউন্ট থাকলে লগিন করুন।  

পৃথিবীর সবচেয়ে শান্তির দেশ হলো আইসল্যান্ড।

পৃথিবীর সবচেয়ে শান্তির দেশ কোনটি এবং কেন?

‘আইসল্যান্ড’ শব্দটি শোনামাত্রই মাথায় বরফে আচ্ছন্ন এক দৃশ্য ফুটে ওঠে। হয়তো যখন আপনি এই আর্টিকেলটির টাইটেল পড়ছেন তখনও সেরকম কিছুই মাথায় এসেছে। তবে বাস্তবে কিন্তু মোটেও তা নয়;বরং দেশটি নামে বরফে আবৃত ঠান্ডা কোনো জায়গা মনে হলেও দেশটি আসলে প্রাকৃতিক রুপে পরিপূর্ণ। কম্পিউটার বা মোবাইল স্ক্রিনে ওয়ালপেপার হিসেবে যে নৈসর্গিক প্রাকৃতিক দৃশ্য আমরা দেখতে পাই, দেশটি যেন এরই এক বাস্তবিক রুপ। আইসল্যান্ডকে বলা হয় পৃথিবীর সবচেয়ে শান্তির দেশ। চলুন এর কারণ গুলো জেনে নেই..

১. দেশটিতে কেবল ৩ লাখ ৩২ হাজার মানুষের বসবাস এখানে। এর মধ্যে প্রায় ১ লাখ ২২ হাজার অর্থাৎ প্রায় অর্ধেক মানুষ আইসল্যান্ডের রাজধানী রিকজাভিক বা এর আশেপাশের এলাকায় থাকে।

২. আইসল্যান্ডের পানি এতটাই বিশুদ্ধ যে কোনো প্রকার বিশুদ্ধকরণ প্রক্রিয়া ছাড়াই পানি প্রত্যেক ঘরে ঘরে সরবরাহ করা হয়।

পৃথিবীর সবচেয়ে শান্তির দেশ কোনটি এবং কেন?

৩. বিশ্বের সর্ববৃহৎ ওয়ার্ল্ড হ্যাপিনেস রিপোর্ট (জাতিসংঘ প্রকাশিত) অনুযায়ী, আইসল্যান্ড পৃথিবীর তৃতীয়-সুখী দেশ।

৪. আইসল্যান্ডের পুলিশ তাদের সাথে অস্ত্র হিসেবে বন্দুক বহন করে না। এর কারণ সেখানে অপরাধ খুব কম হয় এবং বড় ধরনের কোনো অপরাধ প্রায় অস্তিত্বহীন।

৫. আইসল্যান্ড দেশটি এতটাই পরিষ্কার যে সেখানে কোনো মশা নেই। কেবল মশা নয়, মানুষের সমস্যা সৃষ্টিকারী এমন পোকা-মাকড় এর সংখ্যা অনেক কম।

পৃথিবীর সবচেয়ে শান্তির দেশ কোনটি এবং কেন?

৬. আইসল্যান্ডে কোনো সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী বা বিমান বাহিনী নেই।

৭. আইসল্যান্ডবাসী আইসক্রিম খেতে বেশ পছন্দ করে। এমনকি শীতের সময়ও তারা আইসক্রিম খেয়ে থাকে, সেক্ষেত্রে তাপমাত্রা যাই থাকুক না কেনো।

৮. আইসল্যান্ডের সবচেয়ে জনপ্রিয় খাবার হলো ‘হট ডগ’। রেস্টুরেন্ট,গ্যাস স্টেশন কিংবা রাস্তার পাশের স্টপ যেখানেই হোক না কেনো এটি সর্বত্র পাওয়া যায়।

ভাই শান্তির দেশ যদি বলতেই হয় তাহলে আমি বলবো আমাদের বাংলাদেশই সবচেয়ে শান্তির দেশ। হোক না দেশ যতোই দুর্নীতি কিন্তু হিসাব মিলিয়ে দেখবেন আমরা যেভাবে শান্তিতে ঘুমোতে পারি অন্য খুব কম দেশই এভাবে শান্তিতে ঘুমাতে পারে। 

নিউইয়র্ক, ২০ মার্চ- ২০১২ সালের প্রথম বিশ্ব সুখের রিপোর্টের পরে চারটি আলাদা দেশ শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে: ২০১২, ২০১৩ এবং ২০১ in সালে ডেনমার্ক, ২০১৫ সালে সুইজারল্যান্ড, ২০১ 2017 সালে নরওয়ে এবং এখন ২০18, 2019 এবং 2020 এ ফিনল্যান্ড। একটানা তিনবার টপে আছে ফিনল্যান্ড

দেশটির র‌্যাঙ্কিংয়ের পাশাপাশি ওয়ার্ল্ড হ্যাপিনেস রিপোর্ট ২০২০ প্রথমবারের মতো বিশ্বব্যাপী নগরগুলিকে তাদের সাবজেক্টিভ সুস্থতার দ্বারা স্থান দিয়েছে। এতে অবাক হওয়ার মতো কিছু নেই, বিশ্বের সবচেয়ে সুখের শহর হ'ল ফিনল্যান্ডের রাজধানী হেলসিঙ্কি। প্রকৃতপক্ষে, প্রতিবেদনটি দেখায় যে সাধারণভাবে শহরগুলির সুখের র‌্যাঙ্কিং তারা যে দেশগুলিতে অবস্থিত তাদের প্রায় একই রকম এরপরে রিপোর্টটি কীভাবে সামাজিক, নগর ও প্রাকৃতিক পরিবেশ আমাদের সুখকে প্রভাবিত করতে একত্রিত হয় তার আরও গভীরভাবে খনন করে। গ্রিনস্পেসে হাঁটা মানুষকে আনন্দিত করে - তবে বিশেষত যদি তারা কোনও বন্ধুর সাথে থাকে।

শিতকালে ফিনল্যান্ড
শিতকালে ফিনল্যান্ড

 

রিপোর্ট অনুযায়ী সবচেয়ে শান্তিপূর্ণ দেশ হল আইসল্যান্ড। জিপিআই  রিপোর্টে  অনুযায়ী  দেশের মোট পয়েন্ট  ১১৯২। রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, ও সামাজিক ভাবে ভাল অবস্থানে রয়েছে  এই দেশে।

Iceland
Iceland

অসাধারণ ঐতিহ্যবাহী এই দেশটির রয়েছে সব চাইতে কম অপরাধীর রেকর্ড। এবং এই দেশটি পর্যটনের জন্য বেশ ভালো একটি স্থান বিধায় প্রচুর টুরিস্ট এই দেশে যান। তাদের জরিপে জানা যায় আইসল্যান্ডের অধিবাসী বেশ শান্তিপ্রিয় এবং সহযোগী মানসিকতা সম্পন্ন।

বিশ্বে সুপরিচিত দেশ গুলোর মধ্যে ভুটান সবচেয়ে শান্তিপূর্ণ দেশ।

তার কারণ, দেশের আয়তন এবং জনসংখ্যা কম, তারা অধিকাংশই বৌদ্ধ। তাদের সেনাবাহিনী রাখার জন্য খরচ বা দুশ্চিন্তা কোনোটাই করতে হয়না। ভুটানে বিদেশি নাগরিকদের প্রবেশ নিয়ন্ত্রিত। অর্থাৎ বছরে নির্দিষ্ট সংখ্যার বেশি বিদেশী ভুটানে প্রবেশ করতে দেয়না। ফলে বিদেশি শক্তি অশান্তি ছড়াতে পারেনা। হিংসায় উৎসাহ দেয় এমন কোন ধর্মপালন নিশিদ্ধ। প্রাকৃতিক ও সাংস্কৃতিক সৌন্দর্যের কারণে পর্যটন শিল্প উন্নত। ফলে জনগণ যথেষ্ট সুখী। তাদের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে কূটনৈতিক দড়ি টানাটানি বা মানসিক যুদ্ধের ঝামেলা নেই। প্রতিবেশি দেশের সঙ্গে ঝামেলাই যেতে চায় না। তবে চীন মাঝে মধ্যে স্বভাবগত কারনেই ভুটানকে খোঁচা দেওয়ার চেষ্টা করে কিন্তু সেটা সফল হয় না, কারণ সেটা সামলানোর জন্য ভারতের সঙ্গে ভুটানের ভালও সম্পর্ক যথেষ্ট। আর ভুটান পৃথিবীর এক মাত্র Carbon negative দেশ। যা বলে দেই দেশটি কত ভালও। 

সাধারণত শক্তিশালী দেশের ছোট প্রতিবেশী দেশগুলো সমস্যায় পড়ে যখন সেখানে দ্বিতীয় কোনো শক্তিশালী দেশ না থাকে। কিন্তু ভুটানের সুবিধা হল যে সে দুৃটো শক্তিশালী দেশের মাঝে অবস্থিত। ফলে কেউ একজন ঝামেলা পাকালে আরেকজন তা বাধা দেবে।


 

https://youtu.be/YsQPqwzg8is

 পৃথিবীর সবচেয়ে শান্তির দেশ  আইসল্যান্ড। আইসল্যান্ডে প্রতি বছর শতকরা ০-১.৫% খুনের ঘটনা দেখা যায়। এছাড়া কোনো বড় অপরাধ তো দূরের কথা, ছোটখাটো চুরিও সেখানে বিরল ঘটনা। তাছাড়া সেখানকার মানুষ সবাই শান্তি প্রিয়।  

পৃথিবীর সবচেয়ে শান্তির দেশ হলো আইসল্যান্ড।